Bangamata Begum Fazilatunnessa Mujib Hall


Dr. M.Mazibar Rahman

Provost
Dr. M.Mazibar Rahman
Department of Statistics

Bangamata Begum Fazilatunnessa Mujib Hall

Message From Provost

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণীর নামে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল একটি নব নির্মিত হল । প্রভোস্ট হিসাবে আমি ২৪/০৪/২০১৪ তারিখ দায়িত্বভার গ্রহণ করি । নবনির্মিত বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের পূর্বেই ছাত্রীদের আবাসিক সমস্যা  সমাধানের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতিক্রমে গত ০৭ মার্চ ২০১৭ তারিখ থেকে হলে ছাত্রীদের আবাসন বাবস্থা করা হয়েছে । বর্তমানে হলটিতে ৬২৮ সীটের বিপরীতে ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের (৪৭তম ব্যাচ) ছাত্রীসহ বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের মোট ৯২০ জন ছাত্রী অবস্থান করছেন । হলের সাথে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডেন, আবাসিক শিক্ষক, সহকারী আবাসিক শিক্ষক ও কর্মচারীদের সক্রিয় প্রচেষ্টা এবং ছাত্রীদের সহযোগিতায় প্রশাসনিক কার্যক্রম অত্যন্ত সুষ্ঠু ও সাবলীলভাবে পরিচালিত হচ্ছে । হল প্রশাসন সভা ও সাধারন সভায় মিলিত হয়ে হলের বিভিন্ন সমস্যা নিরুপন, পর্যালোচনা ও সমাধানের পদক্ষেপসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক  পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছেন । সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যাবহারের মধ্যে দিয়ে হলের প্রশাসনিক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছে । বর্তমানে হলে গ্যাস সংযোগ না থাকায় হলের ডাইনিং কার্যক্রম বন্ধ আছে । ইতোমধ্যে ছাত্রীদের খাবারের জন্য ক্যান্টিন চালু করা হয়েছে, হলের ভিতরে ষ্টেশনারী দোকান বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এবং ফটোকপির কাজ সম্পন্ন করার জন্য ফটোকপি মেশিনের দোকান বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে । ছাত্রীরা যাতে উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে তার জন্য হলে ইন্টারনেট বাবস্থা চালু করা হয়েছে । ছাত্রীদের নিরাপত্তা বাবস্থা জোরদারের জন্য ১২ টি আইপি ক্যামেরা চালু করা হয়েছে । হল প্রশাসনের উদ্যোগে মাননীয় উপাচার্যের অনুমোদনক্রমে হলের কমনরুমের জন্য ১২টি দৈনিক পত্রিকা, ১টি সাপ্তাহিক ও ১ টি পাক্ষিক পত্রিকা রাখার বাবস্থা করা হয়েছে ।


বঙ্গবন্ধুর প্রেরণাদাত্রী

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব

বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী বেগম ফজিলাতুন্নেছা ১৯৩০ সালের ৮ই আগস্ট গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন । পিতা শেখ জহুরুল হোক । মাতা হোসনে আরা বেগম । তিনি অত্যন্ত সরলমনা কিন্তু রাজনীতি-সচেতন ও নিরহঙ্কারী মানুষ ছিলেন । জাতীয় সংকটে জাতির পিতাকে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন । উল্লেখ্য, আগরতলা মামলায় সরকার শেখ মুজিবুর রহমানকে প্যারোলে মুক্তি দিতে চাইলে বেগম মুজিব তার তীব্র প্রতিবাদ করেন এবং ঘোষণা করেন নিঃশর্ত মুক্তি ছাড়া কোন মুক্তি গ্রহণযোগ্য হবে না । ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট স্বামী, শিশুপুত্র, সস্ত্রীক দুই পুত্রসহ তাকে হত্যা করা হয় ।

                                                                            -জাতির জনক  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট